Press "Enter" to skip to content

সারদায় আমানতকারীদের টাকা ফেরতের রিপোর্ট তলব হাইকোর্টের

Spread the love

মোল্লা জসিমউদ্দিন: কলকাতা, শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচি এবং বিচারপতি শুভ্রা ঘোষের ডিভিশন বেঞ্চে সারদায় রাজ্য সরকারের বরাদ্দকৃত অর্থ নিয়ে মামলা ওঠে। সুবীর দে নামে এক আমানতকারী গত ফেব্রুয়ারি মাসে সারদায় প্রতারিতদের অর্থ ফেরতে রাজ্য সরকারের শ্যামল সেন কমিশনের অর্থ ফেরত যাওয়া নিয়ে মামলাটি দাখিল করেছিলেন। শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচির ডিভিশন বেঞ্চে রাজ্য সরকার কে বরাদ্দকৃত অর্থ ফেরত যাওয়া নিয়ে হলফনামা পেশের নির্দেশ দেয়। চার সপ্তাহের মধ্যে রাজ্য সরকার কে জানাতে হবে কেন বরাদ্দকৃত অর্থ ফেরত গেল? সেইসাথে সারদা ছাড়া অন্য চিটফান্ডে প্রতারিত আমানতকারীরা কিভাবে টাকা ফেরত পাবে। তা লিখিতভাবে জানাতে হবে রাজ্য সরকার কে। কলকাতা হাইকোর্টের এহেন নির্দেশিকায় রাজ্য জুড়ে লক্ষ লক্ষ প্রতারিত আমানতকারীরা আশার আলো দেখছেন। আদালত সুত্রে প্রকাশ, রাজ্যে সারদা সহ বিভিন্ন আর্থিক লগ্নিসংস্থার দুর্নীতি প্রকাশ্যে আসতেই ২০১৩ সালে রাজ্য সরকার ৫০০ কোটি বরাদ্দকৃত অর্থ অনুদান মঞ্জুর করে চিটফান্ডে প্রতারিত আমানতকারীদের জন্য। এজন্য অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শ্যামল সেন কে নিয়ে কমিশন গঠন করা হয়। প্রায় ৫ লক্ষ আমানতকারীরা তাদের গচ্ছিত অর্থ ফেরত পান। তবে ২০১৪ সালে মাঝপথেই শ্যামল সেন কমিশন বন্ধ হয়ে যায়। ৫০০ কোটির মধ্যে রাজ্য সরকারের কাছে পুনরায় ফেরত যায় ১৩৮ কোটি টাকা। কেন সব আমানতকারীদের অর্থ ফেরত না দিয়ে মঞ্জুর হওয়া ফেরত গেল? কেনই বা সারদা ছাড়া অন্য চিটফান্ডে প্রতারিতরা অর্থ ফেরত পাবে না? এইবিধ নানান প্রশ্ন তুলে গত ফেব্রুয়ারিতে সুবীর দে নামে এক আমানতকারী কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচির ডিভিশন বেঞ্চে মামলা দাখিল করেন। এই মামলায় গতকাল ডিভিশন বেঞ্চ রাজ্য সরকারের কাছে চার সপ্তাহের মধ্যে চিটফান্ডে বরাদ্দকৃত অর্থ কেন ফেরত গেল তার রিপোর্ট তলব করে। সেইসাথে সারদা ছাড়া অন্য চিটফান্ডে প্রতারিতরা কেন অর্থ ফেরত পাবেনা সে সম্পর্কে অবস্থান লিখিতভাবে জানাতে হবে রাজ্য সরকার কে। অপরদিকে গত ১২ই মার্চ এই ডিভিশন বেঞ্চে সারদা মামলায় মূল অভিযুক্ত দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের জামিনের মামলায় শুনানি চলে। সেখানে সিবিআইয়ের আইনজীবী উপস্থিত না থাকায় আগামী শুনানিতে অর্থাৎ মঙ্গলবার সিবিআইয়ের আইনজীবী কে উপস্থিত থাকবার মৌখিক নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ডিভিশন বেঞ্চের তরফে। যদি সেদিন সিবিআইয়ের আইনজীবী উপস্থিত না থাকেন তাহলে সারদা মামলায় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই অফিসার কে হাজির হতে হবে বলে জানিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। ২০১৪ সালে এই মামলার তদন্তভার পায় সিবিআই । গত ২১ ফেব্রুয়ারিতে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচির ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলায় মূল অভিযুক্ত দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের আইনজীবী জামিনের আবেদন করেন। গত দুটি শুনানিতে সিবিআইয়ের আইনজীবী উপস্থিত না থাকায় গত ১২ই মার্চ হাইকোর্ট জানিয়ে দেয় – আগামী মঙ্গলবার সিবিআইয়ের আইনজীবী কে উপস্থিত থাকতে হবে। তা নাহলে তদন্তকারী অফিসারকে থাকতে হবে শুনানির সময়।

More from GeneralMore posts in General »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *