Press "Enter" to skip to content

শিয়ালদহ আদালতে কুকুর শাবক হত্যা মামলায় চার্জ গঠন…..

Spread the love

মোল্লা জসিমউদ্দিন: কলকাতা,১৪ই জানুয়ারি২০২০ সোমবার কলকাতার শিয়ালদহ আদালতে এনআরএস হাসপাতালে কুকুর হত্যা মামলার শুনানি হয়। এদিন কুকুর শাবক হত্যায় অভিযুক্ত দুজনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হল। ৪২৯,২০১ এবং ১১ (এল) ধারায় চার্জ গঠন করা হয়। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হবে। এই মামলায় অভিযোগকারী পুতুল রায় প্রথমে সাক্ষ্য দেবেন বলে জানা গেছে। যদিও অভিযুক্তরা নিজেদের নিরপরাধ বলে দাবি রাখে আদালতে । মাস খানেক পূর্বে শিয়ালদহ আদালতে এসিজেম এজলাসে এনআরএস হাসপাতালে কুকুর হত্যা মামলায় চার্জশিট দাখিল করে এন্টালি থানার পুলিশ। প্রায় ৯ মাস পর ২০৪ পাতা বিশিষ্ট চার্জশিটে দুজন কে পুলিশি রিপোর্টে দোষী হিসাবে অভিযুক্ত করা হয়েছে। যদিও এই মামলায় ৫ জন সন্দেহভাজন ছিলেন। কুকুর হত্যা মামলায় এনআরএস হাসপাতালে নার্সিং বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী বাঁকুড়ার মৌটুসী মন্ডল এবং নাসিং বিভাগে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী কাকদ্বীপের সোমা মন্ডলের নাম রয়েছে। ঘটনার প্রথমভাগে এরা দুজন গ্রেপ্তার হলেও বর্তমানে ব্যক্তিগত জামিনে মুক্ত রয়েছেন। চার্জশিটে পশু হত্যা, খুনের নৃশংসতা এবং তথ্য প্রমাণ লোপাটের ধারা গুলি আছে। ১৬ টি কুকুর শাবক হত্যায় তোলপাড় হয়েছিল বাংলা। বিশেষত কুকুর শাবক খুনের ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছিল সোশাল মিডিয়ায়। কলকাতার বিভিন্ন পশুপ্রেমী সংগঠন এই ঘটনার প্রতিবাদে হাসপাতাল চত্বর সহ কলকাতার রাজপথে বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছিল। যদিও এই হাসপাতালের ডেপুটি সুপারের নেতৃত্বে এক তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছিল। আদালত সুত্রে প্রকাশ, গত বছরের ১৩ জানুয়ারী কলকাতার শিয়ালদহ সংলগ্ন এনআরএস হাসপাতালের মেটারনিটি ওয়ার্ডে বস্তাবন্দি কুকুর শাবকদের মারতে দেখা যায় কয়েকজন কে। যা পরে ভাইরাল ভিডিও হিসাবে ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। ঘটনাস্থলের পাশেই রয়েছে নার্সিং বিভাগের হোস্টেল। তাই সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মী সহ নার্সিং বিভাগের ছাত্রীদের পুলিশি তদন্তে সন্দেহভাজন হিসাবে রাখা ছিল। এন্টালি থানার পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ চালানোর পাশাপাশি হাসপাতালের বিভিন্ন প্রান্তের সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করে থাকে। ১৬ টি কুকুর শাবক হত্যায় প্রায় ৯ মাস পর ২০৪ পাতার চার্জশিট দাখিল পেশ করা হয় শিয়ালদহ আদালতে। যেখানে নার্সিং বিভাগের দুই ছাত্রী মৌটুসী মন্ডল এবং সোমা বর্মনের বিরুদ্ধে পশু হত্যা, খুনের নির্মমতা এবং তথ্য প্রমাণ লোপাটের অভিযোগগুলি আনা হয়েছে। এই গুরত্বপূর্ণ মামলায় এন্টালি থানার পুলিশ চার্জশিট দাখিল করতে এত সময়সীমা কেন নিয়েছিল, তা নিয়েও আইনজীবীদের একাংশ প্রশ্ন তুলেছেন। সোমবার দুপুরে শিয়ালদহ আদালতে এই মামলায় দুজন অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হল । এই মামলায় পরবর্তী শুনানি ৭ ফেব্রুয়ারিতে রয়েছে। ওইদিন থেকেই এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হবে।

More from GeneralMore posts in General »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *