Press "Enter" to skip to content

মৌসুমী ১৯৭০-এর দশকে বলিউডের অন্যতম ‘হাইয়েস্ট পেইড’ অভিনেত্রী ছিলেন। অমিতাভ বচ্চন থেকে রাজেশ খন্না, ঋষি কপূর, বিনোদ খন্না, জিতেন্দ্র, বিনোদ মেহরা সকলের সঙ্গে হিট ছবিতে অভিনয় করেছেন…..।

Spread the love

শু ভ জ ন্ম দি ন মৌ সু মী চ ট্টো পা ধ্যা য়

বাবলু ভট্টাচার্য : ‘বালিকা বধূ’ থেকে ‘পিকু’-তে দীপিকা পাডুকোনের মাসির চরিত্রে অভিনয়ের সুবাদে তিনি বাংলা তথা হিন্দি ছবির দর্শকের কাছে পরিচিত মুখ। তিনি মৌসুমী চট্টোপাধ্যায়।

আসল নাম ইন্দিরা চট্টোপাধ্যায়।

আজীবন হুল্লোড়ে মৌসুমী ১৯৭০-এর দশকে বলিউডের অন্যতম ‘হাইয়েস্ট পেইড’ অভিনেত্রী ছিলেন। অমিতাভ বচ্চন থেকে রাজেশ খন্না, ঋষি কপূর, বিনোদ খন্না, জিতেন্দ্র, বিনোদ মেহরা সকলের সঙ্গে হিট ছবিতে অভিনয় করেছেন। হিন্দির পাশাপাশি বাংলা ছবিতেও তাঁর অবাধ যাতায়াত ছিল।

১৯৭২ সালে বিনোদ মেহরার সঙ্গে ‘অনুরাগ’ ছবিতে বলিউডে পা রাখেন মৌসুমী। ছবির পরিচালক ছিলেন শক্তি সামন্ত। সে বছর ‘অনুরাগ’ সেরা ছবির পুরস্কার পায়। ছবিতে এক অন্ধ মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন মৌসুমী।

১৯৮১ সালে উত্তম কুমারের শেষ ছবি ‘ওগো বধূ সুন্দরী’-তে তাঁর অভিনয় আজও দর্শকদের মনে রয়েছে। এর মধ্যেই তাঁর দুই মেয়ে পায়েল এবং মেঘার জন্ম হয়। ছবি করা অনেকটাই কমিয়ে দিয়েছিলেন মৌসুমী। তবুও ভাল চরিত্র সব সময় তাঁকে আকর্ষণ করেছে। তাই ‘জাপানিজ ওয়াইফ’ এবং ‘গয়নার বাক্স’-য় তাঁকে দেখা যায়।

তরুণ মজুমদার পরিচালিত বাংলা সিনেমা ‘বালিকা বধু’-তে অভিনয়ের মাধ্যমে তাঁর চলচ্চিত্র অভিষেক ঘটে।

তিনি শশী কাপুরের সাথে ‘নাইনা’, বিনোদ মেহ্‌রার সাথে ‘আস পার’-এর মতো অনেক হিট সিনেমায় অভিনয় করেন। এরপর তিনি অমিতাভ বচ্চনের সাথে ‘বেনাম’ এবং তারপর রাজেশ খান্নার বিপরীতে রহস্য সিনেমা ‘হামসাকাল’-এ অভিনয় করেন।

তাঁর অভিনীত সবচেয়ে সফলজনক চলচ্চিত্র ১৯৭৪ সালে, মনোজ কুমারের ‘রোটি কাপাড়া অর মাকান’— যে সিনেমায় তিনি একজন ধর্ষিতা সংগ্রামী নারীর চরিত্রে অভিনয় করেন। তাঁর এই অভিনয় ফিল্মফেয়ার সেরা সহ-অভিনেত্রীর পুরস্কার অর্জন করে।

তিনি তনুজচন্দ্রের ‘জিন্দেগী রক্স’এবং ‘বলিউড/হলিউড’ সিনেমাতে জমজ চরিত্রে অভিনয় করেন।

মৌসুমি চ্যাটার্জি অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে- ‘অনুরাগ’, ‘আস-পার’, ‘রাফতার’, ‘উমার কয়েদ’, ‘মাযাক’, ‘জিন্দেগী’, ‘জ্যোতি বানে জালওয়া’, ‘ভোলা ভালা’, ‘প্রেম বন্ধন’, ‘ঘর পারিভার’।

বাংলা চলচ্চিত্রে প্রধান অভিনেত্রী হিসেবে তাঁর অভিনীত সিনেমাগুলো- ‘বালিকা বধূ’, ‘পরিণীতা’, ‘অনিন্দিতা’, ‘আনন্দ আশ্রম’, ‘ওগো বধূ সুন্দরী’, ‘প্রার্থনা’, ‘শতরূপা’, ‘কড়ি দিয়ে কিনলাম’ প্রভৃতি।

পরবর্তীতে বাংলা চলচ্চিত্রে সহ-অভিনেত্রী হিসেবে তাঁর অভিনীত- ‘নাটের গুরু’, ‘ভালোবাসার অনেক নাম’, ‘গোলাপী এখন বিলেতে’, ‘দ্য জাপানিজ ওয়াইফ’ এবং ‘গয়নার বাক্স’।

মৌসুমী চ্যাটার্জি ১৯৪৮ সালের আজকের দিনে (২৬ এপ্রিল) কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন।

More from CinemaMore posts in Cinema »
More from InternationalMore posts in International »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *