Press "Enter" to skip to content

মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা, ওজন কমানো, ক্যান্সারের বিপদ কমাতে গ্ৰীন টি র অনবদ্য ভূমিকা রয়েছে…

Spread the love

———–জীবন প্রবাহে গ্ৰীন টি র যাদু————

মৃদুলা ঘোষ: কলকাতা, ১২মে ২০২০। মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা কে মূলধন করে চলতি সময়ে প্রতিযোগিতা র দৌড়ে প্রতি দিন যদি বাধা হীন ভাবে এগোতে হয়, তাহলে সারাদিনে দরকার দুই-তিন কাপ গ্ৰীন টি। বর্তমান জীবন যুদ্ধে এই পানীয় টি বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে। আসলে এতো অস্থিরতা, ব্যস্ততা মানসিক চাপ কে অতি ক্রম করে কিভাবে দৈনন্দিন জীবনে প্রতি মুহূর্ত কে ভালো রাখতে পারি, বিশেষত,শারীরিক ভাবে সুস্থ থাকতে পারি, রোজকার কাজ গুলি সফলতা র সাথে শেষ করতে পারি, তার চেষ্টা সকলেই করতে চায়। সেই স্পিরিট, এনার্জি, জোশ, এনে দিতে পারে, প্রতি দিন দু-তিন কাপ গ্ৰীন টি। মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা, ওজন কমানো, ক্যান্সারের বিপদ কমাতে গ্ৰীন টি র অনবদ্য ভূমিকা রয়েছে।
মানব মস্তিষ্ক কে আরো উন্নত করে ব্যাক্তিত্ব তৈরী তে সাহায্য করে ক্যাফিন স্টিমুলেটিং উপাদান, যা গ্ৰীন টি তে থাকে। এছাড়া মস্তিষ্কে দ্রুত রক্ত পৌছানোর কাজ করে গ্ৰীন টি তে থাকা আ্যমাইনো আ্যসিড। তাই কফি র তুলনায় এক কাপ গ্ৰীন টি অনেক বেশি এনার্জি দেয়।
গ্ৰীন টি শরীরে ফ্যাট বার্ন করে শারীরিক ক্ষমতা কে বাড়িয়ে দেয়, তার সাথে মেটাবলিক রেট কে যুক্ত করে, ফলে শারীরিক ক্ষমতা বা এনার্জি লেভেল কে কয়েক গুন এগিয়ে দেয়।
গ্ৰীন টি র মধ্যে বায়োআ্যকটিভ কম পাউন্ড থাকা র জন্য, এই চা পানে, শরীর ভালো থাকে। গ্ৰীন টি শুধু ই সবুজ তরল পানীয় নয়। প্রচুর পরিমাণে গুরুত্বপূর্ণ নিউট্রিয়েন্টস পূর্ণ একটি পানীয় যাতে খুব শক্তিশালী আ্যন্টি অক্সিডেন্ট থাকে, যা মানব শরীরের উপোযোগী। গ্ৰীন টি পানে র অভ্যাস বৃদ্ধ বয়সে আ্যলজাইমার, পারকিনসনস ইত্যাদি অসুখ থেকে রক্ষা করে। বৃদ্ধ বয়সে ও মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা সতেজ থাকে। গ্ৰীন টি র বায়ো আকটিভ কমপাউন্ড মানব শরীরের নিউরন কে সুরক্ষিত করে মস্তিষ্কের ডিজেনারেটিভ পরিবর্তন কে সঠিক পথে চালিত করে। অন্যদিকে, দাঁতের স্বাস্থ্য নজরে রাখা, সংক্রমণ প্রতিরোধে, মুখগহ্বরের ব্যাকটেরিয়া কে ধ্বংস করা গ্ৰীন টি র বিশেষ কাজ। মুখগহ্বরের অত্যন্ত ক্ষতি কর ব্যাকটেরিয়া স্ট্রেপ্টোকক্কাস যা দাতেঁর ভিতর ক্যাভিটি তৈরি তে সাহায্য করে, মুখে র ভেতর ঘা তৈরী করে, সেই ব্যাকটেরিয়া র বংশ বিস্তার কে প্রতি রোধ করে গ্ৰীন টি। তার সাথে মুখের দুর্গন্ধ দূর করে। বিভিন্ন গবেষণা থেকে জানা গেছে, ডায়াবেটিক রোগী দের রক্তে সুগারের মাত্রা কমতে পারে যদি সে নিয়মিত গ্ৰীন টি পান করে, তার সাথে টাইপ টু ডায়াবেটিস ও দূরে থাকে। হার্টের অসুখের বিভিন্ন রিস্ক ফ্যাক্টর কার্ডিওভাসকুলার অসুখ, স্ট্রোক, ইত্যাদি কে সহজেই প্রতিরোধ করতে পারে প্রতি দিন দু-তিন কাপ গ্ৰীন টি, রক্তে র আ্যন্টি অক্সিডেন্ট শোষন ক্ষমতা বেড়ে যায়, কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে।

আ্যন্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ গ্ৰীন টি বিভিন্ন প্রকার ক্যান্সার প্রতিরোধে অসীম ক্ষমতা রাখে। বর্তমানে সারা পৃথিবীর জুড়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ক্যান্সারে। শরীরে আ্যন্টি অক্সিডেন্ট যোগানের অভূতপূর্ব উৎস হলো গ্ৰীন টি। এই পানীয় পানে র অভ্যাসে মহিলাদের ব্রেস্ট ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা ২২শতাংশ কমে যায়। তবে মনে রাখতে হবে, গ্ৰীন টি দুধ দিয়ে খেলে, তার আ্যন্টি অক্সিডেন্ট এর পরিমাণ কমে যায়, গ্ৰীন টি র সামগ্ৰিক গুন লোপ পায়। আমাদের সমগ্ৰ জীবন ধারা কে সচল, প্রাণবন্ত, সতেজ রাখে এই গ্ৰীন টি। এর নিয়মিত পানে র অভ্যাসে বিভিন্ন কারণে মৃত্যুর হাতছানি কে দূরে রাখে মহিলা দের ক্ষেত্রে ২৩শতাংশ, পুরুষদের ক্ষেত্রে ১২ শতাংশ। নিজেকে সুস্থ নীরোগ রাখতে আজ থেকে ই গ্ৰীন টি বানিয়ে আমেজ করে পান করুন।

More from GeneralMore posts in General »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *