Press "Enter" to skip to content

ভিনরাজ্যে কাজ করা শ্রমিকরা ফিরেছে মঙ্গলকোটে, রয়েছে করোনা আতঙ্ক……

মোল্লা জসিমউদ্দিন: পূর্ব বর্ধমান,২৪ মার্চ ২০২০ ; সারা বিশ্বে করোনা থাবায় প্রাণহানি অব্যাহত। এই রাজ্যেও সোমবার করোনা ভাইরাস সংক্রমণে মৃত্যুর ঘটনা শুরু হয়ে গেছে। তাই করোনা নামক ‘যমদূত’ প্রতিটি মানুষকে চরম দুশ্চিন্তায় ফেলে দিয়েছে এটা বলার অপেক্ষা রাখেনা। ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে মঙ্গলকোট ব্লক এলাকার প্রায় হাজারের কাছাকাছি ভিনরাজ্যে কাজ করা শ্রমিকরা ফিরেছে নিজ নিজ বাড়িতে। বেশিরভাগই কেরালা – চেন্নাই -মুম্বাই- পাঞ্জাব থেকে এসেছে গত সপ্তাহে। এদের সিকিভাগ প্রতিনিধিদের কাছে ব্লক প্রশাসন পৌঁছাতে পারলেও বেশিরভাগই ‘বিদেশ থেকে ফিরে এসে কার না ভালো লাগে’ সুরে স্থানীয় ভ্রমণে ব্যস্ততায় কাটাচ্ছে। আর এতেই মঙ্গলকোটের বিশেষত লাখুরিয়া – গোতিস্টা – পালিগ্রাম – চাণক অঞ্চলগুলিতে এলাকাবাসীদের কাছে তৈরি করেছে করোনা নিয়ে চাপা আতঙ্কের পরিবেশ। ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে হোম কোয়ারেন্টাইন থাকবার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ভিনরাজ্যে কর্মরত থাকা আসা শ্রমিকদের। ওই পরামর্শটুকু দেওয়া ছাড়া আর কোন স্বাস্থ্য পরীক্ষার কোন উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি বলে অভিযোগ। গত রবিবার প্রধানমন্ত্রীর ডাকে ‘জনতা কারফিউ’ এর কোন প্রভাব পড়েনি মঙ্গলকোটে। অন্যান্য দিনের মতনই বাজার – ঘাটে ব্যস্ত থেকেছে মঙ্গলকোট। তবে পুলিশের তরফে বারবার প্রচার শুরু হয়েছে লকডাউনের মুখ্য উদ্দেশ্য নিয়ে। ভিনরাজ্য থেকে আসা শ্রমিকদের বড় অংশ মোটরবাইক কিংবা সাইকেলে বিভিন্ন গ্রামের মেঠোপথ গুলিতে ‘স্বদেশী’ হাওয়া লাগাতেই ব্যস্ত! তাই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে – এইভাবেই যদি হোম কোয়ারেন্টাইন চলে, তাহলে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের শঙ্কা দেখা যাবে বেশি মঙ্গলকোটের বুকে। ভিনরাজ্য থেকে আসা শ্রমিকদের কেউ কেউ বাড়ী ফেরার রেলপথে আসবার সময় থার্মাল গানে সম্মুখিন হওয়ার ছবি দেখিয়েছে। তবে সেটি হাতেগোনা কয়েকজনের। হাজারের কাছাকাছি ভিনরাজ্যে কাজ করা শ্রমিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ঠিকমতো নজর না দিলে করোনা ভাইরাস অধ্যুষিত এলাকা হিসাবে মঙ্গলকোট দ্রুত চলে আসবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

যদিও কাটোয়া মহকুমাশাসক জানিয়েছেন – “এত সংখ্যক ব্যক্তিদের হাসপাতালে পর্যবেক্ষণ করে রাখার মত পরিকাঠামো আমাদের নেই “। অপরদিকে মঙ্গলকোট ওসি মিথুন ঘোষ জানিয়েছেন – স্থানীয় সিভিক, ভিলেজ পুলিশের মাধ্যমে আমরা ভিনরাজ্য থেকে আসা শ্রমিকদের উপর নজরদারি চালাচ্ছি, সেই সাথে দফায় দফায় প্রচার গাড়ি যাচ্ছে প্রায় গ্রামে। এত কিছুর পর যদি কেউ হোম কোয়ারেন্টাইন এড়িয়ে যান, তাহলে তার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে”।

More from GeneralMore posts in General »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.