Press "Enter" to skip to content

কলকাতা প্রেস ক্লাবে অবহেলিত শিশুরা কেক কেটে সান্তার সাথে বড়দিন উৎসব পালন করল…

Spread the love

সুজিত চট্টোপাধ্যায়/গোপাল দেবনাথ- ইউনেস্কোর সমীক্ষা বলছে, ভারতে নব্বই শতাংশ শিশু ন্যূনতম খাদ্য থেকে বঞ্চিত। প্রতি পাঁচজন শিশুর মধ্যে একজন অপুষ্টির শিকারে কম ওজনের হয়। পাঁচ বছরের নিচে বয়সের শিশুদের মৃত্যুহারে ভারত প্রথম স্থানে। বিশ্ব ক্ষুধাসূচকে বিশ্বে একশো সতেরোটি দেশের মধ্যে ভারত একশো দুইতম দেশ। এই তালিকায় ভারতের স্থান বাংলাদেশ, নেপাল, পাকিস্তান ,এমনকি দরিদ্রতম দেশ নাইজেরিয়ার থেকেও পিছিয়ে।
খ্রিসমাস ইভে কলকাতার প্রেস ক্লাবে ‘জি এস বি রিসার্চ এন্ড কনসাল্টিং’, পোশাক নির্মাতা ‘আলভা’ ও ভার্চুয়াল কম্যুনিকেশন এর সহযোগিতায় দারিদ্রসীমার নিচে থাকা শিশুদের নিয়ে অঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। এই সব হতভাগ্য শিশুরা এন জি ও সংস্থা হোপ ফাউন্ডেশনের পর্যবেক্ষনে প্রতিপালিত হয়। খ্রিসমাস ইভ উপলক্ষে বাচ্চাদের টফি ও কেক বিতরণ করে সান্তাবুড়ো। জি এস বি সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা ও সি ই ও গৌতম সরকার বলেন, আমি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি, এইসব শিশুদের সঙ্গে বড়দিনের আনন্দ ভাগ করে নিতে পেরে। আমাদের আশা ভবিষ্যতে এমন অনুষ্ঠান ভারতের সর্বত্র ছড়িয়ে দিতে পারবো।
আলভা বস্ত্র নির্মাতা সংস্থার সহ প্রতিষ্ঠাতা এবং সি ই ও মোহাম্মদ ওয়াসিম বলেন, কোয়ালিটি ও ফ্যাশনের শেষকথা ‘আলভা ব্র্যান্ড’। কিন্তু এইসব শিশুদের পোশাক কিনে পড়ার ক্ষমতা নেই। আমরা তাই এখানে উপস্থিত পঞ্চাশজন শিশুকে এই সুন্দর পোশাক উপহার দিচ্ছি।
সহযোগী আয়োজক ‘ভার্চুয়াল কম্যুনিকেশন’ এর কর্ণধার মনিত সিং জানান, আমরা চেয়েছি, শিশুরা যেন মনে না করে আমরা ওদের কোনো দয়া করছি। তাই এই অঙ্কন প্রতিযোগিতার আসর। শিশুরা যেন ভাবতে শেখে স্বীকৃতি ও দক্ষতা দিয়ে অধিকার অর্জন করতে হয়। এই সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ফ্যাশন ডিজাইনার ও অভিনেত্রী পানসি সাহা। দারিদ্রতার নাগপাশে বন্দি থাকলেও যেন তারা অস্তিত্ব সংকট কাটিয়ে উঠতে পারে। এই সব শিশুদের নিয়ে এমন একটি সুন্দর অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য উদ্যোক্তারা প্রশংসার দাবী রাখতে পারেন।

More from GeneralMore posts in General »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *