Press "Enter" to skip to content

ক্যারিয়ারের শুরুতে ‘তারকাসুলভ’ চেহারা নেই বলে তামিল পরিচালক সিভি শ্রীধরের সিনেমা থেকে বাদ পড়েছিলেন হেমা মালিনী। পরে সেই চরিত্রে অভিনয় করেন জয়ললিতা……..।

শু ভ জ ন্ম দি ন হে মা মা লি নী

বাবলু ভট্টাচার্য : তিনি বলিউডের ড্রিম গার্ল। বিখ্যাত ছবি ‘শোলে’র বাসন্তী! শুধু সিনেমার পর্দাতেই না, ক্যামেরার পেছনে পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েও নিজেকে অন্যভাবে তুলে ধরেছিলেন হেমা। আর তারপর বড় পর্দা থেকে সোজা রাজনীতির আঙিনায়। সেখানেও উজ্জ্বল হেমা মালিনী।

ক্যারিয়ারের শুরুতে ‘তারকাসুলভ’ চেহারা নেই বলে তামিল পরিচালক সিভি শ্রীধরের সিনেমা থেকে বাদ পড়েছিলেন হেমা। পরে সেই চরিত্রে অভিনয় করেন জয়ললিতা। ১৯৬৫ সালে ‘পাণ্ডব বনবাসাম’ ছবির একটি ছোট্ট চরিত্রের মাধ্যমে প্রথম বলিউডে প্রবেশ।

১৯৬৮ সালে ‘স্বপ্ন কা সওদাগর’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে মূল চরিত্রে রুপালি পর্দায় অভিষিক্ত হন। অবশ্য অনেক বাধা পেরোতে হয়েছে তাকে।

পরবর্তীতে বলিউডে ‘শোলে’, ‘সীতা ঔর গীতা’, ‘মীরা’, ‘কিনারা’, ‘সন্ন্যাসী’, ‘মেহবুবা’, ‘ড্রিম গার্ল’, ‘প্রেম নগর’, ‘খুশবু’র মতো ছবি দিয়েই প্রমাণ করেন তিনি ‘স্টার ম্যাটেরিয়াল’ কি না। অল্প সময়ে হয়ে ওঠেন ‘ড্রিম গার্ল’।

সর্বমোট ১১ বার ফিল্ম ফেয়ার পুরস্কারে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে মনোনয়ন পান। ২০০০ সালে তিনি পদ্মশ্রী সম্মাননা লাভ করেন।

তখন বলিউডে পুরুষ শাসন চলছে। একের পর এক তারকার জয় জয়কার। এরই মধ্যে পাল্লা দিয়ে শীর্ষ ১০ উপার্জনকারী শিল্পীর তালিকায় চলে আসেন হেমা মালিনী। ১৯৭১ থেকে ১৯৭৫ সালের মধ্যে বলিউডের চতুর্থ সর্বাধিক উপার্জনকারী শিল্পী ছিলেন তিনি।

পর্দায় যথেষ্ট নামডাক এবং উপার্জনে এগিয়ে থাকলেও লেখাপড়ায় খুব একটা মনোযোগী ছিলেন না। তার দৌড় দশম শ্রেণি। দশম শ্রেণি উঠেই পড়াশোনা ছেড়ে দেন হেমা। ছোট থেকেই তিনি নায়িকা হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন, এটাই হয়তো কারণ।

উচ্চ বংশের ছেলে জিতেন্দ্র। পাত্র হিসেবে জিতেন্দ্রকে পছন্দ ছিল হেমার মা-বাবারও। জিতেন্দ্রর সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়ে যাওয়ার পর একদম শেষ মুহূর্তে নাকি তা ভেঙে দেন হেমা। বাড়ি থেকে বহু চেষ্টা করেও হেমা মালিনীর বিয়ে জিতেন্দ্রর সঙ্গে দিতে পারেনি।

শোনা যায়, সঞ্জীব কুমারও হেমা মালিনীকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। হেমা প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সঞ্জীব মদের নেশায় ডুবে যান। নিজের আত্মজীবনীতে হেমা লিখেছেন, বলিউডের প্রয়াত অভিনেতা সঞ্জীব কুমারের সঙ্গে ভালো বন্ধুত্ব ছিল তার।

ধর্মেন্দ্র-হেমা মালিনীর প্রথমবার পর্দা ভাগাভাগি ১৯৭০ সালে, ‘তুম হাসিন ম্যায় জাওয়ান’ সিনেমায়। দু’জনে একসঙ্গে অসংখ্য ছবিতে অভিনয় করেছেন। সেই সূত্রে প্রেম। হেমার পরিবার কিছুতেই মেনে নেবে না। ওই দিকে ধর্মেন্দ্রর সংসার আছে। সব প্রতিকূলতা পেরিয়ে স্বপ্নসুন্দরীকে জিতে নেন ধর্ম সিংহ দেওল, বিবাহিত তারকা ধর্মেন্দ্র। ১৯৭৯ সালে বীরু- বাসন্তীর চার হাত এক হয়।

শিল্পকলার প্রতি দারুণ আকর্ষণ রয়েছে হেমার। নাট্যবিহার কলাকেন্দ্রের প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। বড় পর্দার পাশাপাশি ছোট পর্দাতেও নিজের অভিনয় দক্ষতার ছাপ রেখেছেন হেমা। মজার ব্যাপার হচ্ছে, অভিনয়ে সফল হলেও নাচই হেমার জীবনের মূলমন্ত্র। নাচই তার প্রথম ভালোবাসা। নাচে পটু হেমা ভারতীয় সব ধরনের নাচে দক্ষ।

হেমা মালিনী ১৯৪৮ সালের আজকের দিনে (১৬ অক্টোবর) তামিলনাড়ুতে জন্মগ্রহণ করেন।

More from CinemaMore posts in Cinema »
More from EntertainmentMore posts in Entertainment »
More from InternationalMore posts in International »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *