Press "Enter" to skip to content

বসন্ত আজই জাগ্রত দ্বারে…….।

                                         
 
গোপাল দেবনাথ : কলকাতা, ২৬, মার্চ ২০২১। আর মাত্র দুদিন পরেই দোল উৎসব ঠিক তার পরের দিনই হোলি উৎসব। করোনা কাল শেষ না হলেও মানুষের মনে রং লাগা শুরু হয়ে গেছে। দেশের নানা রাজ্যের সাথে সাথে আমাদের শহরেও প্রাক দোল উৎসব শুরু হয়েছে। জাহ্নবী সাংস্কৃতিক চক্র ও পিছিয়ে নেই। এই সংস্থা শুধু  থিয়েটার গ্রুপ নয় এটি একটি বিশাল পরিবার।

পরিবারের প্রত্যেকটি সদস্য ও সদস্যা নিজেদের ভালোবাসা দিয়ে এই পরিবারকে বেঁধে রেখেছে। শিল্পই এই পরিবারের মূল মন্ত্র। আজ থেকে ঠিক ১৬ বছর আগে ২০০৫ সালে সমরজিৎ দাসের হাত ধরে এই পরিবারের শুভ সূচনা হয়। ধীরে ধীরে বড়ো হতে থাকে পরিবার। থিয়েটার কে সমাজের বিভিন্ন স্তরে পৌঁছে দেওয়াই জে এস সি এর উদ্দেশ্য। ভারতবর্ষের বিভিন্ন কোণায় নিজেদের নাট্যপ্রতিভা বিস্তার করে পুরস্কৃত ও সম্মানিত হয়েছে তারা। কিন্তু এই জয়ের ক্ষনিকের খুশি মন ভরাতে পারেনি জাহ্নবীর। তারা চেয়েছিলো যারা বিভিন্ন কারণে জীবনের মূল স্রোত থেকে ছিটকে গেছে তাদেরকে আবার মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনতে।

সেই কারণেই ২০১০ সাল থেকে হাওড়ার সংশোধনাগারের আবাসিকদের নিয়ে কাজে লেগে পরে জাহ্নবী সাংস্কৃতিক চক্র। ভুল তো মানুষ মাত্রই হয়, কিন্তু একটা ভুলের জন্য মানুষের ভিতরে থাকা শিল্পী টা কে মেরে ফেলা কোনো বুদ্ধিমত্তার কাজ নয়। তাই সংশোধনাগারের আবাসিকদের নিয়ে থিয়েটার শুরু করেন সমরজিৎ দাস এবং প্রতিটি মানুষের কাজই তাক লাগিয়ে দেয় আজ।কোরোনা অতিমারীর সময় গতবছর ২৯ শে মে জাহ্নবী সাংস্কৃতিক চক্রের প্রথম ত্রাণ বিতরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করে। গিরিশ পার্কের গণিকা পল্লীতে ৭০ টি পরিবারকে একমাসের ত্রাণ দিয়েছিলো তখন।

আম্ফানের সময়ে বাঁচরা গ্রামেও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। আগামী দিনে আরো অভিনব কাজ নিয়ে নতুন রূপে আসতে চলেছে জাহ্নবী সাংস্কৃতিক চক্র। তার শুভ সূচনা শুরু হলো আজ ২৬শে মার্চ রানু ছায়া মঞ্চে (একাডেমি প্রাঙ্গনে )। দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বসন্ত উৎসব উদযাপিতহ হলো। নৃত্যের আর রঙের এক অপূর্ব মেলবন্ধন। জাহ্নবী সংস্কৃতিক চক্রের নতুন নৃত্য বিভাগ শীঘ্রই আসতে চলেছে। নাম “মেঘমালহার”। এই শুভ উদ্যোগ শুরু হচ্ছে মেঘমালা আইচ রায় এর হাত ধরে। তাকে সহযোগিতা করবে মেহলি দাস। আরো একটি চমক নাট্যকার বাদল সরকার রচিত পাগলা ঘোড়া। এই সংস্থার চলার পথ মসৃন করতে যাদের নাম বিশেষ ভাবে উল্লেখ করতে হয় তারা হলেন এই পরিবারের কর্ণধার : সমরজিৎ দাস। সম্পাদক : জয়ন্তী সরকার, সহ সম্পাদক: মধুরিমা ঘোষ ও মেঘমালা আইচ রায়।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.