Press "Enter" to skip to content

ত্রিপুরায় শ্যাম সুন্দর কোং জুয়েলার্স আয়োজিত স্বর্ণগ্রাম বার্ষিক ক্রীড়া দিবস….।

নিজস্ব প্রতিনিধি : ওয়ারেংবাড়ি, ত্রিপুরা, ২২ মে, ২০২২ শ্যাম সুন্দর কোং জুয়েলার্সের উদ্যোগে ওয়ারেংবাড়ির স্বর্ণগ্রামে ১৩ তম বার্ষিক ক্রীড়া দিবসের আয়োজন করা হয়।

শ্যাম সুন্দর কোং জুয়েলার্সের এক আন্তরিক প্রয়াসের নাম স্বর্ণগ্রাম, যা গোমতী জেলার ওয়ারেংবাড়িকে আদর্শ গ্রাম প্রকল্প হিসেবে তুলে ধরেছে।

“স্বর্ণগ্রাম শিক্ষালয়” হল শ্যাম সুন্দর কোং জুয়েলার্সের একটি আবাসিক স্কুল প্রকল্প। এই প্রকল্পে সংস্থার তরফে স্কুলের আবাসিকদের সবরকম সুযোগসুবিধা দেওয়ার পাশাপাশি পড়ুয়াদের জন্য যথাযথ পুষ্টি, পড়াশোনার সামগ্রী, বই, উপযুক্ত শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ, খেলাধূলার জন্য কোচ ও মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের জন্য স্কলারশিপের ব্যবস্থা করে।

এই স্বর্ণগ্রাম ১৩তম বার্ষিক ক্রীড়া দিবস ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান আসলে এক সার্বজনিক উৎসবে পরিণত হয়েছে। অনুষ্ঠানের শুরুতেই বিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা গান ও ঐতিহ্যশালী নাচের মাধ্যমে সবাইকে বরণ করে নেয়। এদিনের অনুষ্ঠানে ‘বেস্ট স্পোর্টস -বয়’ ও ‘বেস্ট স্পোর্টস -গার্ল’ হিসেবে বিজয়ীদের হাতে ট্রফি তুলে দেওয়া হয়। আনন্দ অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে অন্যান্য খেলার বিজয়ীদের হাতেও পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে খাতা, বই, পেনসিল, পেনসিল বক্সের মতো পড়ালেখার সামগ্রী ও খেলার সামগ্রী হিসেবে ফুটবল, ক্রিকেট ব্যাট ও বল ইত্যাদি স্কুলের আদিবাসী পড়ুয়াদের হাতে তুলে দিয়ে অনুষ্ঠানে এক নয়া মাত্রা যোগ করা হয়।
একইসঙ্গে বিশিষ্ট চিকিৎসকদের নিয়ে একটি স্বাস্থ্য শিবিরও হয়। সকল ছাত্রছাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করে সবাইকে প্রয়োজনীয় ওষুধও দেওয়া হয়।
শ্যাম সুন্দর কোং জুয়েলার্সের ডিরেক্টর রূপক সাহা জানান, ‘স্বর্ণগ্রাম প্রকল্পটি আমাদের কাছে স্বপ্নের মতো এক বিশেষ উদ্যোগ, যা ১৩ বছরেরও আগে শুরু হয়েছিল। আর আজ এই উদ্যোগ এক বড়ো আকার নিয়েছে। এর জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতর যে সহযোগিতা করেছে তার জন্য কৃতজ্ঞ। সংবাদমাধ্যম ও এই ক্ষেত্রে বরাবরই বিশেষ ভূমিকা নিয়েছে। তাদের কাছেও আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। এছাড়া স্বর্ণগ্রামের মানুষের থেকে যে উৎসাহ পেয়েছি তা সব চেয়ে উল্লেখযোগ্য।’
সংস্থার আরেক ডিরেক্টর অর্পিতা সাহা বলেন, ‘ আমাদের আরো অনেক কাজ বাকি রয়েছে। তবে যেভাবে ত্রিপুরা রাজ্যের সবার কাছ থেকে সবসময় সহযোগিতা পেয়ে আসছি তা নাহলে এই কাজ এগোত এগোতে পারতো না।
এই আনন্দঘন দিনটি শেষ হয় একসঙ্গে সবার পংক্তি ভোজনের মাধ্যমে।

More from EducationMore posts in Education »
More from GeneralMore posts in General »
More from SportMore posts in Sport »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.