Press "Enter" to skip to content

তিরিশ বছর পরে কলকাতার ডালহৌসি অঞ্চলে দেখা বন্ধু দেবাশীষ চক্রবর্তী’র সাথে ও বললো “তুই আবার গান শুরু কর”………..

শান্তনু বসু: লেখক,গায়ক ও সুরকার: ১০ জুলাই, ২০২০। স্কুলের পাঠ চুকিয়েছি সেই কবে! তারপর কলেজ। এর মাঝেই মফঃসল থেকে এসে আমি কলকাতায় জীবন যুদ্ধ শুরু করেছিলাম। সেই যুদ্ধের বিষয় প্রাণের বস্তু হলেও, জীবনে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার ক্ষেত্রে তার খোল নলচে সম্বন্ধে তখন আমার কোনও ধারনাই ছিলনা। একেবারে অচেনা অজানা সেই ভালোবাসার বিষয়ই আপন ইচ্ছাতেই একদিন পেশায় পরিণত হল। মাঝে অবশ্যই অনেকগুলো বছর পেরিয়ে গেছে। নতুন অনেক কিছু পাওয়ার পাশাপাশি তখন হারিয়েও গেছে অনেক কিছু। বিশেষ করে হারিয়ে গেছে স্কুলের অনেক বন্ধু। ফেসবুকের এর দৌলতে এখন অনেকের সন্ধান পেলেও আজও অনেকেই ধরা ছোঁয়ার বাইরে। এরকমই এক হারিয়ে যাওয়া বন্ধু দেবাশীষ চক্রবর্তী। ২০১৮ তে দীর্ঘ তিরিশ বছর পরে কলকাতার ডালহৌসি অঞ্চলে ওর অফিসের সামনে হঠাৎ দেখা। কয়েক কথার পরেই ওর প্রশ্ন ছিল, “তোর মিউজিক নিয়ে অনেক খবরই পাই। কিন্তু তোর গান কোথায় গেল?” আমি হাসতে হাসতে বলেছিলাম – গান এখন “Gun” হয়ে গেছে। দেবাশীষ ওর চিরাচরিত স্বভাবসিদ্ধ ঢঙে বলেছিল, “তুই আবার গান শুরু কর।”তারপর আমার সঙ্গে লেগে থেকে ২০১৯ এর মধ্যে দেবাশীষের উদ্যোগে বেশ কিছু গান রেকর্ড করা হ’ল। যার বেশিরভাগই রবীন্দ্রনাথের গান। এই বছরের ২৫শে বৈশাখ তার কিছু গান প্রকাশ করবার সব ঠিকঠাক থাকলেও ‘করোনা’ মহামারী তা হতে দিল না। অবশেষে একটি গান প্রকাশ পেল। দেবাশীষ এই সময়ে ছোটবেলার স্মৃতিকে উস্কে দিল। এই বন্ধুর জন্য ধন্যবাদ হিসেবে কোনও শব্দই যথেষ্ট নয়। যাদের জন্য এই গান শোনা বা দেখার উপযোগী করে তোলা গেছে সেই গৌতম বসু, সঞ্জয় ঘোষ, মিলটন ও রাজা চৌধুরী কে অনেক ধন্যবাদ। অশেষ কৃতজ্ঞতা ইন্দ্রাণীদি মানে অধ্যাপিকা ও শিল্পী ডঃ ইন্দ্রাণী সেন এর প্রতি। নিজের অমূল্য সময় ব্যয় করে শুধুমাত্র আমাকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য ওঁর সারাক্ষণ স্টুডিওতে থাকা ও সামান্য ত্রুটি বিচ্যুতিকে আন্তরিক ভাবে সংশোধন করে দেওয়া কখনও ভোলার নয়।

More from GeneralMore posts in General »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.