Press "Enter" to skip to content

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের অন্যতম এই ‘রোজা’…. ৷

” রমজানের অভিনন্দন !”
—————————————
ডাঃ দীপালোক বন্দোপাধ্যায় : ৩ এপ্রিল ২০২২। “খোশ আমদেদ মাহে রমজান “অর্থাৎ স্বাগতম রমজান মাস ৷ আজ ৩ এপ্রিল রবিবার থেকে শুরু হলো মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষের একমাস ব্যাপী সিয়াম সাধনার মাস “রমজান “(Ramadan / Ramzan). শাবান মাসের শেষ রাত থেকে ইসলামিক ক্যালেন্ডারের নবম বা রমজান মাস শুরু হয় ৷ ইসলামিক বর্ষপঞ্জী চাঁদ নির্ভর ৷ ১২ মাস থাকলেও এই ক্যালেন্ডারে ৩৫৪ দিন বলে প্রতিবছর গ্রেগরীয়ান বা ইংরেজি ক্যালেন্ডার থেকে ১১ দিন মত এগিয়ে আসে৷ গতকাল রাতে ভারতবর্ষে রমজানের চাঁদ দেখা গেছে ৷ তাই ,আজ থেকে প্রথম রোজা রাখা হবে ৷ ভোরে ফজরের নামাজের আগে সেহরী খাওয়ার পর সারাদিন না খেয়ে এবং পানীয়জল  পান না করে সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের পর ইফতারী খেয়ে রোজা ভাঙা হবে ৷ হজরত মহম্মদের মক্কা থেকে হিজরত করে মদিনা পৌঁছানোর এক বছর পর অর্থাৎ দ্বিতীয় হিজরী সাল থেকে ইসলামে এর সূত্রপাত হয়৷ “রমজান ” একটি আরবী শব্দ ৷ রামিয়া বা আর -রামম ধাতু থেকে এসেছে ৷ এর আভিধানিক অর্থ তাপমাত্রা বা শুষ্কতা ৷ আসলে দহন , জ্বলন বা ছাই -ভস্ম হওয়া ৷ যা ক্ষুধা তৃষ্ণায় কাতর মানুষটি পেটের জ্বালা বুঝতে পারে ৷ সংযমের মাধ্যমে ষড়রিপুকে জ্বালিয়ে দেওয়া এই প্রতিবেদকের মনে হয় এর উদ্দেশ্য রোজা রাখার জন্য মানুষের কু প্রবৃত্তিগুলি দূর্বল হয়ে যায় ৷ মানুষকে খারাপ কাজ থেকে বিরত রাখে ৷ প্রাক ইসলামী আমলে এই মাসটির নাম ছিল “তাছাবুক “বা শানিত হওয়া ৷ রমজান নামটি পবিত্র কোরানের দু নম্বর সুরা আল বাকরার ১৮৫ নম্বর আয়াতে আছে ৷ মুসলমান সম্প্রদায় মানুষের কাছে সবচেয়ে বরকতময় ও মর্যাদাপূর্ণ মাস ৷ আর এই উপবাস রোজা আরবীতে একবচনে “সাওম” এবং বহুবচনে “সিয়াম” ৷ যাকে পারসিতে বলে “রোজা” ৷ এই কথাটিই বাংলায় প্রচলিত ৷ ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের অন্যতম এই রোজা ৷ ইসলাম ধর্মের অনুসারীদের বিশ্বাস এই মাসেই আজ থেকে ১৪০০ বছর আগে মহম্মদের কাছে কোরানের প্রথম আয়াত বা শ্লোক নাজিল বা অবর্তীন হয়েছিল ৷ কথিত আছে এই মাসে নাকি জান্নাতের বা স্বর্গের দরজা খুলে যায় এবং জাহান্নাম বা নরকের দরজা বন্ধ হয়ে যায় ৷ হজের সওয়াব বা পূণ্যলাভ হয় ৷ এই মাসে শয়তানকে আল্লাহ্ বেঁধে রাখেন৷ এ মাসটিতে মুসলমানরা রোজা ছাড়াও দান , ধ্যান অর্থাৎ নামাজ ইত্যাদির মধ্যে কাটান৷ এই মাসে মিথ্যা বলা ও খারাপ কাজ করা পাপ বলে ধরা হয়।  একে অপরকে বলেন “রমজান মোবারক “বা “রমজান করিম “৷ গর্ভবতী মহিলা ও গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তি ছাড়া রোজা রাখা ফরজ বা অবশ্য পালনীয় ৷ মাসিকের দিনগুলি মহিলারা রোজা রাখতে না পারায় পরে ঐ সংখ্যায় রোজা রাখতে হয় ৷ এক মাস সংযম সাধনার পর দশম মাস অর্থাৎ শাওয়ালের চাঁদ দেখা গেলে পালিত হয় ঈদ-উল-ফিতর বা খুশীর ঈদ ৷ আমার মুসলিম বন্ধুদের জানাই রমজানের অভিনন্দন ৷ ধর্মের পথে থেকে সবাই হও খাঁটি সোনা ৷ পৃথিবী হোক সবরকম কলুষতা থেকে মুক্ত ৷ তাহলে এই বিশ্বেই নেমে আসবে বেহেস্ত বা স্বর্গ ৷

More from InternationalMore posts in International »
More from SocialMore posts in Social »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.